October 23, 2021

Sylhet Amar Sylhet

www.sylhetamarsylhet.com

ছবি: সংগৃহীত

ভারতে চীনের পণ্য বয়কটের ডাক, ক্ষতি হবে ১৭ বিলিয়ন ডলার!

অনলাইন ডেস্ক :facebook sharing button

ভারত চীনের সীমান্ত উত্তেজনার মধ্যে সম্প্রতি দুই দেশের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছেন ২০ ভারতীয় সেনা। এ ঘটনায় ভারতে চীনা পণ্য বয়কটের ডাক দিয়েছে দেশটির ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো। আর বিশ্লেষকরা বলছেন, তাতে ভারতের লোকসান হতে পারে প্রায় ১৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

এনডিটিভি জানায়, চীনের সমস্ত পণ্য বর্জন করার ডাক দিয়েছে ভারত। এতে বড়সড় ক্ষতির মুখে পড়বে দেশটির ছোট থেকে বড় মাপের ব্যবসায়ীরা। লাদাখে ভারতীয় সেনাদের মৃত্যুর ঘটনায় চীনের প্রতি ধিক্কার জানিয়েছে ইন্ডিয়ানরা। এর ফলে চীন থেকে পণ্য আমদানি বন্ধের দাবি উঠেছে গোটা ভারতে। বছরে প্রায় ৭৪ বিলিয়ন ডলারের চীনা পণ্য আমদানি করে ভারত। চীন থেকে এসব পণ্য আমদানি বন্ধ করতে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ব্যবসায়ীরা।

জানা যায়, চীন থেকে সারা বছর আমদানি করা জিনিসের মধ্যে খুচরা ব্যবসায়ীরা বিক্রি করেন প্রায় ১৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। এসবের মধ্যে বেশিরভাগই খেলনা, পারিবারিক নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস, বৈদ্যুতিক ও ইলেকট্রনিক দ্রব্য এবং নানা রকমের প্রসাধনী।

ই কমার্স সংস্থাগুলির সাধারণ সম্পাদক ভি কে বনসল সংবাদসংস্থা পিটিআইকে বলেন, আমরা ‘অল ইন্ডিয়া ব্যপার মন্ডল’ ফেডারেশন, আমাদের সংস্থার সমস্ত সদস্যদের চীনা পণ্য মজুত করতে এবং বিক্রি করা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত বিরত থাকার পরামর্শ দিচ্ছি। আমরা সরকারকেও অনুরোধ করছি যাতে তারা ই-কমার্স সংস্থাগুলিকে চাইনিজ পণ্য বিক্রি নিষিদ্ধ করার আদেশ দেয়।

কনফেডারেশন অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সুশীল পোদ্দার জানান যে, তারা সমস্ত সদস্যদের যতটা সম্ভব চীনা পণ্যের বিক্রি বন্ধ করে দেওয়ার অনুরোধ করেছেন। পাশাপাশি কনফেডারেশন অফ অল ইন্ডিয়া ট্রেডার্স চীনের পণ্য আমদানি বয়কটের ডাক দিয়েছে।

খবরে বলা হয়, বয়কটের জন্য মোট ৩ হাজার চীনের দ্রব্য নিয়ে একটা তালিকা তৈরি করা হয়েছে। আগামী বছরের মধ্যে আমদানি ১৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার কমানোর জন্য দাবি জানানো হয়েছে।

এনডিটিভি জানায়, বলিউড অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন, অক্ষয় কুমার এবং ক্রিকেটার মহেন্দ্র সিং ধোনি এবং শচীন তেন্ডুলকরকে অনুরোধ করা হয়েছে কোনও রকম চিনা সামগ্রীর বিজ্ঞাপনে কাজ না করতে।