September 27, 2021

Sylhet Amar Sylhet

www.sylhetamarsylhet.com

দক্ষিণ সুরমায় মহিলাকে ধর্ষণের চেষ্টা, ধর্ষক রুমনকে জুতা পেটা, থানায় মামলা

দক্ষিণ সুরমা উপজেলার দক্ষিণ বলদী বিলপাড় গ্রামে এক মহিলাকে ধর্ষণের চেষ্টাকালে ধর্ষক রুমন মিয়াকে জুতা পেটা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১২ এপ্রিল রোববার বিকাল সাড়ে ৪টায়।

এ ব্যাপারে দক্ষিণ বলদী বিলপাড়া গ্রাম নিবাসী সাহেদ আহমদ এর স্ত্রী শাকিলা বেগম বাদী হয়ে দক্ষিণ সুরমা থানাধিন বানেশ্বরপুর গ্রামের সুয়াই মিয়ার ছেলে রুমন মিয়া, দক্ষিণ বলদী বিলপাড়া গ্রামের মন্তাজ আলীর ছেলে রুবেল মিয়া, লায়েক মিয়া ও উস্তার মিয়া, ইদ্রিছ আলীর ছেলে সমাই মিয়াকে আসামী করে দক্ষিণ সুরমা থানা একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং- ০৩, তারিখ- ১৩/০৪/২০২০ইং।

মামলা দায়ের পর ৫নং আসামী সমাই মিয়াকে গ্রেফতার করেছে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ। সে বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, আসামীগণ বাদীর দেবর ও ভাসুর এবং ১নং আসামী রুমন মিয়া বাদীর দেবর রুবেল মিয়ার ঘনিষ্ঠ বন্ধু। পারিবারিক বিষয়াদি নিয়ে বাদীর স্বামী সাহেদ আহমদের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। বিবাদীগণ বিভিন্ন সময় পারিবারিক বিষয়কে কেন্দ্র করে বাদী ও তার স্বামীকে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতো। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৮ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় কোন কারণ ছাড়াই বাদীকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে। এ সময় বাদীর স্বামী এর প্রতিবাদ করলে ২, ৪ ও ৫নং আসামীগণ সংঘবদ্ধ হয়ে বাদী ও তার স্বামীকে কিলঘুষি মেরে আহত করে এবং বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি ও হুমকী প্রদর্শন করে।

পূর্ব বিরোধের জের ধরে গত ১২ এপ্রিল বিকেল সাড়ে ৪টার সময় বাদীর স্বামী ঘরে না থাকার সুবাদে ১নং আসামী রুমন মিয়া ও ২নং আসামী রুবেল মিয়া বাদী ঘরে অনধিকার প্রবেশ করে বাদীকে ঝাপটাইয়া ধরে জোরপূর্বক কাপড়-চোপড় খুলার চেষ্টা করে এবং শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে স্পর্শ করে শ্লীলতাহানী করে। ১নং আসামী রুমন বাদীর মুখে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে কামর মেরে নিলাফুলা জখম করে। এ সময় বাদী আত্মরক্ষায় রুমনকে জুতাপোটা করে। ২নং আসামী রুবেল বাদীকে এলোপাতারি ভাবে কিলঘুষি ও লাথি মেরে শরীরের বিভিন্ন স্থানে নিলাফুলা জখম করে। বাদীর চিৎকার শোনে অন্যান্য আসামীগণ এগিয়ে এসে এলোপাতারি মারধর করে এবং কুৎসিত ভাষায় অপবাদ দেয়। বাদীর চিৎকার শোনে বিছানা ঘুমিয়ে থাকা সন্তানরা জেগে ওঠলে তাদের কেউ আসামীগণ গালিগালাজ সহ চড়থাপ্পর মারে। এক পর্যায়ে বাদী ও তাদের বাচ্চাদেরকে ঘরে ভিতরে আটকিয়ে রেখে বাহির থেকে দরজা তালাবদ্ধ করে দেয় আসামীগণ। এ সময় বাদীকে বাড়ি ছাড়া করা লক্ষ্যে কুলটা বলে অপবাদ দিয়ে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে।

তাৎক্ষণি বাদী তার স্বামীকে মোবাইল ফোনে ঘটনার বিষয় অবগত করলে বাদীর স্বামী সাহেদ আহমদ দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশকে সংবাদ দিয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাদী ও তার সন্তানদের উদ্ধার করে। বর্তমানে বাদী ও তার পরিবারের সদস্যরা প্রাণের ভয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে অবস্থান করছেন। বাদী আসামীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবী জানিয়েছেন।