সিলেটে শিশু নাঈম হত্যায় চারজনের মৃত্যুদন্ড

দক্ষিণ সুরমা প্রতিনিধি :

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার আলোচিত শিশু নাঈম হত্যা মামলায় ৪ জনের মৃত্যুদন্ডের রায় দিয়েছেন আদালত। ৯ অক্টোবর বুধবার দুপুর ১২টায় সিলেট জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোঃ মুহিতুল হক এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- দক্ষিণ সুরমা উপজেলার পুরান তেতলী গ্রামের প্রয়াত মোঃ আফতাব আলীর ছেলে মোঃ ইসমাইল আলী (২২), একই এলাকার মোঃ ইছহাক মিয়া ওরফে ইছহাক আলীর ছেলে মোঃ মিঠুন মিয়া (২০), দক্ষিণ সুরমা থানার দক্ষিণ ভার্থখলা ডি ব্লকের ডিপটি ওরফে রুবেলের ছেলে বিপ্লব ওরফে বিপলু (১৮) ও লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ থানার নাদবুদ গ্রামের মোঃ আবুল কাশেমের ছেলে জুনেদ হোসেন (১৯)। এ মামলা থেকে খালাস পেয়েছে রুবেল আহমদ (১৮)।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ সুরমার পুরান তেতলীর বাসিন্দা আবদুল হকের ছেলে নাঈম লিটল স্টার কিন্ডারগার্টেনের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিল। ২০১১ সালের ১৪ আগস্ট রাতে তারাবিহ নামাজে যাওয়ার পথে তাকে অপহরণ করে হত্যা করা হয়। অপহরণের ৭ দিন পর বাড়ির পাশের একটি জঙ্গল থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ২০১১ সালের ২০ আগস্ট নাঈমের বাবা আব্দুল হক বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে দক্ষিণ সুরমা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পরদিন দক্ষিণ সুরমা উপজেলার তৎকালীন উপজেলা চেয়ারম্যান মাওলানা লোকমান আহমদ স্থানীয় জনতার সহযোগিতায় এ নির্মম হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি ইসমাইল আলী ও মিঠুন মিয়াকে দক্ষিণ সুরমা থানার তৎকালীন অফিসার ইনচার্জ আবু শামা মোঃ ইকবাল হায়াতের কাছে সোপর্দ করেন। তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ অন্যান্য আসামিদের গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা রিমান্ডে এবং পরবর্তীতে ১৬৪ ধারায় শিকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১১ সালের ২৬ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমা থানার উপ-পরিদর্শক মোঃ হারুন মজুমদার ৫ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে মামলার চার্জশিট দাখিল করেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী গোলাম এহিয়া বলেন, মামলার রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। দন্ডপ্রাপ্ত আসামিদের ফাঁসি দ্রুত কার্যকর করার দাবি জানান তিনি।