শুড়িগাঁও মোহাম্মদপুর গ্রামের কবরস্থানে পাকা খুঁটি স্থাপনকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের উত্তেজনা

দক্ষিণ সুরমা প্রতিনিধি :

 

দক্ষিণ সুরমা উপজেলার তেতলী ইউনিয়নের শুড়িগাঁও মোহাম্মদপুর গ্রামের কবরস্থানে পাকা খুঁটি স্থাপনকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে এক পক্ষের শেখ মোঃ আব্দুল মুকিত বাদী হয়ে একই গ্রামের আফছার, মকদ্দছ মিয়া, আপ্তাব আলী সর্বপিতা মৃত ছোয়াব আলী, সিরাজুল ইসলাম পিতা- রফিক মিয়া, সামাদ, পিতা- আব্দুর রজ্জাক, আব্দুর রজ্জাক পিতা- মৃত ইদ্রিছ আলী, ফয়ছল, লিলু মিয়া উভয় পিতা মৃত মদরিছ আলী, শিরন আহমদ পিতা মৃত আয়না মিয়া, সোলেমান মিয়া, পিতা মৃত সুরুজ আলী, মাছুম আহমদ, পিতা- সোলেমান মিয়াকে বিবাদী করে দক্ষিণ সুরমা থানা একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন। জিডি নং- ২৫৬, তাং- ০৬/১০/১৯ইং।
জিডি সূত্রে জানা যায়, শুড়িগাঁওয়ের ঐতিহ্যবাহী কবরস্থানের ভূমির উপর পাকা পিলার স্থাপন করে দখল করার চেষ্টা করলে বাদী শেখ মোঃ আব্দুল মুকিত স্থানীয় মুরব্বিয়ানগণ সাথে বাধা দিলে উপরোক্ত বিবাদীগণ সহ আজ্ঞাত আরো ১০/১২ জন দেশীয় অস্ত্রশস্তে সজ্জিত হয়ে তাদের উপর আক্রমণের চেষ্টা করে। এ সময় দক্ষিণ সুরমা থানা বিষয় অবিহত করলে এস.আই লোকমান সরেজিমেন উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার আহবান করেন। বিষয়টি মীমাংসর লক্ষ্যে আগামী ১১ অক্টোবর তারিখে সাশিল বৈঠকের দিন ধার্য করা হয়। এরপরও বিবাদীরা বাদী পক্ষকে প্রাণে হত্যার হুমকী সহ মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করবে বলে হুমকী দিয়ে যাচ্ছি। এই অবস্থায় বাদী ও তার পক্ষের লোকজন এবং পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা চেয়ে দক্ষিণ সুরমা থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন।
উল্লেখ্য, সরকারী খাস খতিয়ানের ২.২৩ একর ভূমি হযরত শাহজালাল রহ. সফর সঙ্গী ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম মিয়াজি শাহ, জিন্দা শাহ’র মাজার রয়েছে। শত বছরের ঐতিহ্যবাহী এই গোরস্থানকে গ্রামের জনগণ তাদের কবরস্থান হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। হঠাৎ করে গ্রামের একটি পক্ষের লোকজন গোরস্থানে পাক খুঁটি স্থাপন করতে গেলে গ্রামের অন্যান্যরা বাধা দিয়ে উত্তোজনা সৃষ্টি হয়।
এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুরমা থানার ওসি খায়রুল ফজলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, যেহেতু কবরস্থানে জায়গা খাস খতিয়ান ভুক্ত। এখানে কেউ জায়গা চিহ্নিত করতে চাইলে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে। তাই তিনি এলাকায় শান্তি রক্ষায় স্বার্থে উভয় পক্ষে শান্ত থাকার আহবান জানিয়েছেন।