চেয়ারম্যান আবুল কালামের বিবৃতি, ০১৩১৮-৬৭৭১৩০, ০১৯০৩-১০০৮৭৯ ও ০১৭১৫ ০৮৬৫৭৫ নাম্বারগুলো র‌্যাবের নয়

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার ৪নং কুচাই ইউনিয়ন পরিষদের ৪ বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলেছেন, গত ২০ আগস্ট মঙ্গলবার র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটলিয়ন-৯ এর হেড কোয়ার্টারে তাকে ডেকে নিয়ে এই তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন যে, পত্রিকায় প্রকাশিত মোবাইল নাম্বার ০১৩১৮-৬৭৭১৩০, ০১৯০৩-১০০৮৭৯ ও ০১৭১৫ ০৮৬৫৭৫ র‌্যাবের নহে এবং র‌্যাব অফিসার পরিচয় দানকারী মাসুদ নামক ব্যক্তি ভূয়া (সঠিক নয়)।

বিবৃতিতে চেয়ারম্যান আবুল কালাম র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটলিয়ন-৯ এর অধিনায়ক তথা আইন-শৃংখলা বাহিনীর নিকট দুষ্কৃতিকারীদের দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানান।

উল্লেখ্য, চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম এর সভাপতিত্বে গত ৫ আগস্ট সকালে পরিষদের সদস্যদের নিয়ে বৈঠক চলছিল। এমন সময় সকাল ১১ টা ৫৭ মিনিটে ০১৩১৮-৬৭৭১৩০ নাম্বার থেকে চেয়ারম্যানের ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন করে অপর প্রান্ত থেকে মাসুদ নামের জনৈক লোক ঢাকা থেকে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ঢাকা স্পেশাল ফোর্সের অফিসার পরিচয় দেন। ওই নম্বার থেকে ফোন করে বলা হয়, আমার ইউনিয়নের জাকির নামের একজনকে ঢাকায় গ্রেপ্তার করেছেন।

পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা ধরণের গুজব, কল্প কাহিনী তৈরী করে পরিবার-পরিজনসহ চেয়ারম্যানকে নিয়ে নোংরা অশ্রাব্য গালিগালাজ করা হয় এবং প্রায় ১৫ দিন আগে আরো দু‘টি নাম্বার থেকে ০১৯০৩-১০০৮৭৯ ও ০১৭১৫ ০৮৬৫৭৫ ফোন করে র‌্যাব-৯ এর পরিচয় দিয়ে বলা হয়, জনৈক ইব্রাহিম খলিল তাদের কাছে অভিযোগ করেছেন, ইউনিয়নে চোর, ডাকাত, সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজদের নাকি আমি প্রশ্রয় দিচ্ছি।

এরই প্রেক্ষিতে গত ১৯ আগস্ট চেয়ারম্যান আবুল কালাম সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। উক্ত সংবাদটি সিলেটের দৈনিক পত্রিকাতে ছাপা হওয়ার পর গত ২০ আগস্ট মঙ্গলবার র‌্যাব-৯ এর হেড কোয়ার্টার এই তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন যে, পত্রিকায় প্রকাশিত মোবাইল নাম্বারগুলো র‌্যাবের নহে এবং র‌্যাব অফিসার পরিচয় দানকারী মাসুদ নামক ব্যক্তি ভূয়া।