জামালপুরে স্কুল বন্ধ ঘোষণা, অর্ধলাখ মানুষ পানিবন্দি

বিদ্যালয়ে পানি ঢুকে যাওয়া্য় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বৃষ্টি ও ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে যমুনা-ব্রহ্মপুত্র নদ নদীর পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেয়ে জামালপুরে বন্যা দেখা দিয়েছে। রবিবার দুপুর ৩টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় যমুনার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে বিপদসীমার ৯০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী নবকুমার চৌধুরী এবং পানি মাপক গেজ পাঠক আব্দুল মান্নান এ তথ্য জানান।

এদিকে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস সূত্রে জানা যায়, জামালপুরের ৭টি উপজেলার ৬৮ ইউনিয়নের মধ্যে ৩৩টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়ে প্রায় অর্ধলক্ষ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। প্রবল বন্যায় দেওয়ানগঞ্জ, ইসলামপুর, মেলান্দহ, মাদারগঞ্জ এই ৪টি উপজেলার মোট ৬৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পানি ঢুকে যাওয়ায় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম।

এদিকে পানির প্রচণ্ড স্রোতে চিনাডুলী ইউনিয়নের দেওয়ানপাড়া গ্রামের ১১টি পরিবারের বাড়িঘর ভেসে গেছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তরা আশপাশের উঁচু রাস্তায় আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। চিনাডুলী-উলিয়ার বাজার ও গিলাবাড়ী-বামনা সড়ক ভেঙ্গে যাওয়ায় ১০ গ্রামের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। উলিয়াবাজার সংলগ্ন এলাকায় বাঁধ ভেঙ্গে বন্যার পানি ঢুকছে। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চুকাইবাড়ি রাস্তা ভেঙ্গে পানি হুহু করে ঢুকছে। বন্যায় এলাকার কৃষকদের বীজতলা, আখ, শাক-সবজি বন্যার পানিতে তলিয়ে নষ্ট হচ্ছে।

দুপুরে জামালপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজিব কুমার সরকার ও জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা নায়েব আলী ইসলামপুর উপজেলার বন্য উপদ্রুত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।