সিলেটের ট্রাক শ্রমিক রায়হান আহমদ চৌধুরীকে হত্যার প্রতিবাদে ও হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন

সিলেটের ট্রাক শ্রমিক রায়হান আহমদ চৌধুরীকে টাঙ্গাইলে পরিকল্পিত ভাবে হত্যার প্রতিবাদে ও হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে আন্দোলনে নেমেছে সিলেট জেলা ট্রাক, পিকআপ ও কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ।

গতকাল ১৫ জুন শনিবার বিকেলে নগরীর দক্ষিণ সুরমার হুমায়ুন রশিদ চত্বরে মানব বন্ধন, প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন সংগঠনের সহ¯্রাধিক শ্রমিক। তারা টাঙ্গাইল পুলিশ কর্তৃক রায়হান আহমদ চৌধুরীর লাশ লা-ওয়ারিশ হিসেবে দাফন করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, যদি আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে নিহতের পরিবার দায়েরকৃত মামলা রেকর্ড ও জড়িতদেরকে গ্রেফতার না করলে পরিবহণ ধর্মঘট’সহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

সিলেট জেলা ট্রাক, পিকআপ ও কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু সরকারের সভাপতিত্বে ও নির্বাহী সদস্য আলী আহমদ আলীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা ট্রাক, পিকআপ ও কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হাজী মাকন মিয়া, জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক শাব্বীর আহমদ ফয়েজ, ট্রাক, পিকআপ ও কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও শ্রমিক নেতা আমীর উদ্দিন, সংগঠনের কার্যকরি সভাপতি আব্দুস সালাম (সালাম মিয়া), সহ সভাপতি জুবের আহমদ, যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, সহ সম্পাদক আহমদ আলী স্বপন, সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম আহমদ, প্রচার সম্পাদক মোঃ সামাদ রহমান, কোষাধ্যক্ষ রাজু আহমদ তুরু, দফতর সম্পাদক বাবুল হোসেন, নিবাহী সদস্য আব্দুল জলিল, আব্দুল মতিন ভিআইপি, বিলাল আহমদ, দক্ষিণ সুরমা-মোগলাবাজার আঞ্চলিক কমিটির সাবেক সভাপতি কাউছার আহমদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মারুফ আহমদ, নিহত রায়হানের চাচা ওয়াকিল আহমদ চৌধুরী, ভাই আমান আহমদ চৌধুরী, ফেঞ্চুগঞ্জ আঞ্চলিক কমিটির সাবেক সভাপতি রাসেল আহমদ টিটু, জুমায়েল ইসলাম জুমেল প্রমূখ। এ সময় ট্রাক, পিকআপ ও কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক ও বর্তমান বিভিন্ন উপ কমিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন।

সভাপতির বক্তব্যে আবু সরকার বলেন, আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। কিন্তু নিহত ট্রাক শ্রমিক রায়হান আহমদ চৌধুরীর পরিচয় জানার পরও টাঙ্গাইল সদর থানা পুলিশ অন্যায় ভাবে লা ওয়ারিশ হিসেবে লাশ দাফন করেছে। যা অত্যান্ত মর্মান্তিক ও নিন্দনীয়। তিনি আগামী ৪৮ ঘন্টার ভিতরে যদি মামলা গ্রহণ ও জড়িদেরকে গ্রেফতার করা না হয়, তাইলে পরিবহণ ধর্মঘট’সহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।