কৌতুক অভিনেতা টেলি সামাদ আর নেই, দাফন মুন্সীগঞ্জে

প্রখ্যাত কৌতুক অভিনেতা টেলিসামাদ। ছবি: সংগৃহীত

শক্তিশালী ও জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা আবদুস সামাদ ওরফে টেলি সামাদ আর নেই (ইন্না…রাজিউন)। শনিবার (৬ এপ্রিল) দুপুর দেড়টায় রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন প্রায় ৬০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করা এই অভিনেতা। হাসপাতাল সূত্রে এ খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৪ বছর।

বাংলা চলচ্চিত্রের প্রখ্যাত কৌতুক অভিনেতা টেলিসামাদের প্রথম জানাজা মাগরিবের নামাজের পর ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে বলে পারিবারিকভাবে জানানো হয়েছে। এরপর রবিবার (৭ এপ্রিল) তাকে নেওয়া হবে এফডিসিতে। সেখানে জানাজা শেষে তাকে মুন্সীগঞ্জে দাফন করা হবে।

জনপ্রিয় এই অভিনেতার মৃত্যুর বিষয়ে তার ভাগ্নে ফাহিম আহমেদ জানান, ‘রাজধানীর ফার্মগেটের পশ্চিম রাজাবাজার জামে মসজিদে বাদমাগরিব টেলিসামাদের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পারিবারিকভাবে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি’। এরপর আজ রাতে তার মরদেহ ঢাকাতেই রাখা হবে। পরে রবিবার বেলা ১১টায় তাকে এফডিসিতে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে অনুষ্ঠিত হবে তার দ্বিতীয় জানাজা। এরপর তার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাবেন তার দীর্ঘদিনের সহ-শিল্পী ও কলাকুশলীরা। জানাজা শেষে এফডিসি থেকে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের নয়াগাঁও গ্রামের নিজ বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হবে টেলিসামাদের লাশ। সেখানে জোহরের নামাজের পর তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে সেখানে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে’। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, টেলিসামাদ দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগ, খাদ্যনালির সমস্যা, রক্তে প্লাটিনাম কমে যাওয়া, ডায়াবেটিসসহ নানা রোগে ভুগছিলেন। ২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রে তার হার্টে বাইপাস সার্জারি করা হয়েছিল। এরপর ২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর তার বাঁম পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলিতেও অস্ত্রোপচার করা হয়। পাশাপাশি প্রায় এক বছর ধরেই শারীরিক নানা সমস্যা নিয়ে হাসপাতাল-বাসায় আসা-যাওয়া করছিলেন টেলিসামাদ।

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে হটাৎ করেই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। রাতেই অসুস্থ অবস্থায় তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। তবে শুক্রবার তার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হলে তাকে আইসিওতে স্থানান্তর করা হয়। অবশেষে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার হাসপাতালে মারা গেলেন তিনি।

উল্লেখ্য, ১৯৪৫ সালের ৮ জানুয়ারি মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার নয়াগাঁও গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন টেলিসামাদ। পড়ালেখা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগ। ছবি আঁকার পাশাপাশি অভিনয়ে নেশাও ছিল তার। এরপর ১৯৭৩ সালে ‘কার বউ’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিষেক ঘটে এই জনপ্রিয় অভিনেতার। প্রায় সাড়ে চার দশক চলচ্চিত্র জগতে ছিল তার পদচারণা। সত্তরের দশকের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত প্রায় ছয় শতাধিক বাংলা চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। সর্বশেষ তাকে দেখা যায় অনিমেষ আইচ পরিচালিত ২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘জিরো ডিগ্রি’ সিনেমায়।